15.3 C
New York
Tuesday, October 26, 2021

১৫ বছর বয়সে ধ র্ষণের শিকার হয়েছিলেন এই নায়িকা

হলিউডের একসময়ের বিখ্যাত নায়িকা ডেমি মুর। যারা নিয়মিত হলিউড মুভির খোঁজখবর রাখেন তাদের কাছে বেশ পরিচিত মুখ ডেমি মুর। ‘স্ট্রি পটিজ’,  ‘ঘোস্ট’,  ‘ইনডিসেন্ট প্রোপোজাল’ এই ছবিগুলোতে অভিনয় করে বেশ নাম কামিয়েছিলেন তিনি। আগামীকাল (২৪ সেপ্টেম্বর) তার ‘ইনসাইড আউট’ নামে আত্মজীবনী গ্রন্থ প্রকাশিত হবে। যে বইতে তিনি তার জীবনের নানা ঘটনা তুলে ধরেছেন।

আর তার এই বইতেই উঠে এসেছে তার জীবনের লোমহর্ষক এক কাহিনী। নিজের বইতে তিনি লিখেছেন মাত্র ১৫ বছরের বয়সে একবার ধ র্ষণের শিকার হয়েছিলেন তিনি।

এছাড়া, ৬ মাসের মাথায় মিসক্যারেজ হয়েছিল ডেমির প্রথম সন্তানের। এরপর অনেক মদ্যপান করতেন তিনি। ২০০৫-এ অ্যাস্টন কুচারের সঙ্গে বিয়ে হয় তার। সে বিয়েও ভেঙে যায় ২০১১ সালে। তারপর আবার বিয়ে করেন ব্রুস উইলিসকে। তার সঙ্গেও তার সম্পর্ক খারাপ হয়ে যায়।

এরপর অনেক দিন রিহ্যাবে কাটিয়েছেন ডেমি । এই সমস্ত কথাই নিজের আত্মজীবনীতে তুলে ধরেছেন ডেমি। বইটি প্রকাশিত হলে সবাই তার জীবন সম্পর্কে জানতে পারবেন।

নারীর স্তনবৃন্ত সম্পর্কে ৮ অজানা তথ্য, যা হয়তো চিন্তাও করেননি

স্তনের আকার ও আয়তন এক এক শরীরে একেক রকম হয়। ঠিক তেমনই স্তনবৃন্তও বিভিন্ন ধরনের হয়। অনেক সময় এই স্তনবৃন্ত দেখেই বোঝা যায় নারী-শরীরে ক্যানসার বা অন্য কোনও রোগ বাসা বেঁধেছে কি না।

স্তনবৃন্ত বলতে যা বোঝায় তার দু’টি অংশ রয়েছে, এরিওলা এবং নিপলস। নিপলস বা স্তনবৃন্ত সব নারী-শরীরে একই রকম হয় না। নীচে রইল স্তনবৃন্ত সম্পর্কে ৮টি তথ্য যা হয়তো জানতেন না—

১) কেশজ : স্তনবৃন্তের আশপাশে ছোট ছোট রোম বা কেশ থাকা খুবই কমন প্রাপ্তবয়স্ক মহিলাদের মধ্যে। তবে যাঁদের পলিসিস্টিক ওভারি সিনড্রোম রয়েছে তাঁদের স্তনবৃন্তে কেশ থাকে বেশি।

 নেশার কারণেই অসম্পূর্ণ থেকে গেল প্রেম, রইল সেই গল্প

২) তৃতীয় বৃন্ত : বিশ্বাস না হলেও সত্যি। নারী শরীরে অনেক সময়েই থার্ড নিপল বা তৃতীয় বৃন্ত দেখা যায়। তবে এই তৃতীয় বৃন্তটি সব সময় বুকেই না-ও থাকতে পারে। অনেক সময়েই এই তৃতীয় বৃন্তটি মুখে অথবা শরীরের অন্য অংশেও দেখা যায়। এটি অত্যন্ত বিরল ঘটনা তবে ঠিক কী কারণে এটি হয় তা এখনও জানা যায়নি।

৩) বাম্পস : স্তনবৃন্তের উপরে ছোট ছোট বাম্পস থাকে যা একেবারেই স্বাভাবিক। এগুলি হল মন্টগোমারি গ্ল্যান্ডস। এই গ্ল্যান্ড থেকেই এক ধরনের তেল নিঃসৃত হয় যা স্তনবৃন্তকে নরম রাখে।

৪) ইনভার্টেড : স্তনবৃন্তে স্পর্শ করলে তা জেগে ওঠে কারণ বেশিরভাগ নারী-শরীরে স্তনবৃন্ত বহির্মুখী। কিন্তু অনেকের শরীরেই তা অন্তর্মুখী। যাঁদের অন্তর্মুখী স্তনবৃন্ত থাকে তাঁদের স্তন্যদান করতে সমস্যা হয়। নিয়মিত ব্রেস্ট মাসাজ করলে এই সমস্যা দূর হতে পারে।

৫) দীর্ঘ : অনেক নারী-শরীরেই স্তনবৃন্ত স্বাভাবিকের থেকে বেশি দীর্ঘ হয়। এই ধরনের স্তনবৃন্ত স্তন্যদানের পক্ষে আদর্শ।

৬) বিরাট : অনেক সময়ই অ্যারিওলা অনেকটা ছড়ানো হয়। অ্যারিওলা ব্যাসার্ধে কতটা বড় হবে তা স্তনের আকার-আয়তনের উপর নির্ভর করে না। অনেক সময়ে ছোট স্তনের ক্ষেত্রেও অ্যারিওলা বড় হতে পারে যা একেবারেই স্বাভাবিক।

৭) ছোট : অ্যারিওলা, স্তনবৃন্ত এবং স্তনের আকার-আয়তন কেমন হবে তা অনেকটাই জিনগত। অনেক নারী-শরীরেই স্তনের আকার ছোট হয়। পাশাপাশি অ্যারিওলা এবং নিপলও অপেক্ষাকৃত ছোট হয়। জিনগত কারণ ছাড়াও কিশোরী বয়সে ঠিকমতো পুষ্টির অভাব বা হরমোন নিঃসরণ কম হলেও এমনটা হতে পারে।

৮) স্ফীত : স্তনবৃন্ত উত্তেজিত হলে তা দীর্ঘ হয়। কোনও কোনও নারী-শরীরে দীর্ঘায়ত স্তনবৃন্ত স্বাভাবিকের তুলনায় অনেকটা বেশি স্ফীতও দেখায়। এর পিছনেও জিনগত কারণ রয়েছে এবং এটিও একেবারেই স্বাভাবিক।

Facebook Comments Box

Related Articles

- Advertisement -

Latest Articles

Facebook Comments Box