-4.5 C
New York
Thursday, January 27, 2022

যেভাবে নির্যাতন করতেন ফিরোজা, ভয়াবহ বর্ণনা অভির

মাদকাসক্তদের পুনর্বাসনের জন্য নিরাময় কেন্দ্র খোলা হলেও সেখানে চলতো অনৈতিক সকল কার্যক্রম। রোগীকে পছন্দ হলে তার ওপর যৌন নির্যাতন চালাতেন নিরাময় কেন্দ্রটির মালিক ফিরোজা নাজনীন বাঁধন। ওই কেন্দ্রে চিকিৎসা নিতে আসা রোগীদের কাছে থেকে হাতিয়ে নেওয়া হতো লাখ লাখ টাকা। কোনো রোগী তাদের অভিভাবকদের কাছে অভিযোগ করলে নির্যাতনের মাত্রা আরও বাড়িয়ে দেওয়া হতো। সেই নির্যাতনের শিকার হয়েছেন চিত্রনায়ক অনিক রহমান অভি।

চিত্রনায়ক অভি এই মাদকাসক্ত নিরাময় কেন্দ্রে আসা ও ভর্তির বিষয়ে র‌্যাব জানান, দেশে করোনার সময়ে চলচ্চিত্রের কার্যক্রম স্থবির থাকায় অর্থনৈতিক টানাপড়েনের কারণে তিনি কিছুটা মানসিকভাবে বিষাদগ্রস্ত হয়ে পড়েন। এ সময় তিনি নিয়মিত ঘুমের ওষুধ সেবন শুরু করলে তার আচরণে কিছুটা অস্বাভাবিকতা দেখা যায়। যার কারণে তাঁকে ওই মাদকাসক্ত পুনর্বাসন কেন্দ্রে ভর্তি করানো হয়।

২০২১ সালের মার্চ মাসে তার মা চিকিৎসার জন্য তাকে ভাওয়াল মাদকাসক্ত পুনর্বাসন কেন্দ্রে নিয়ে আসেন এবং মালিক বাঁধনের কথামতো তার মা তাকে সেখানে ভর্তি করান। পরে তার মা ছেলের চিকিৎসা বাবদ ৩ লাখ টাকা পরিশোধ করেন। পরবর্তী সময়ে প্রতি মাসে ৪০ হাজার টাকা চিকিৎসা খরচ বাবদ প্রদান করেন। মূলত চিকিৎসার নামে তাকে আটকে রেখে প্রতি মাসে মোটা অঙ্কের টাকা আদায় করাই ছিল ভাওয়াল মাদকাসক্তি পুনর্বাসন কেন্দ্রের মুখ্য উদ্দেশ্য।

সংবাদ সম্মেলন শেষে অভি সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলার সময় যে যেভাবে ওই মাদকাসক্তি পুনর্বাসন কেন্দ্র থেকে বের হন, তার বর্ণনা দিয়েছেন। অভি বলেন, আমি জানি ওরা এভাবে আমাকে শেষ করে ফেলবে। যাদের টাকা আছে তাদের চিকিৎসার নামে আটকে রেখে চাঁদা আদায় করতে থাকে। যারা গরিব তাদের বেশিদিন রাখা হয় না। কারণ তাদের রেখে লাভ নেই। আমি এমন একজনের সঙ্গে বন্ধুত্ব তৈরি করি যে সুস্থ হয়ে বাইরে গিয়ে ফের ফিরে আসে। এ সময় সে ফোন নিয়ে আসে, তাকে আমি বলি আমার প্রাণ ভিক্ষা দাও। আমাকে হেল্প করো, না হলে এখানে আমি মারা যাব। সে আসার পর তার ফোনটা আমি হাতে পাই।

এই চিত্রনায়ক বলেন, ‘একদিন ভোর ৫টার দিকে আমি কিচেনে মোবাইল নিয়ে গিয়ে আমার বন্ধু অভিনেতা জয় চৌধুরীকে ফোন দিই। তাঁকে আমি বলি আমার প্রাণ বাঁচাতে। সে বুঝতে পারে। জায়েদ খানের সঙ্গে কথা বলে। এরপর চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতি র‍্যাবে অভিযোগ জানায়। এরই পরিপ্রেক্ষিতে ওখান থেকে আমাকে উদ্ধার করে।’ সেখানের নির্যাতনের বর্ণনা দিতে গিয়ে কেঁপে কেঁপে উঠছিলেন অভি। বলেন, আমাদের ক্ষুধার্ত রাখা হতো। যখন গরম ভাত হতো। চুপ করে গরম ভাত হাত দিয়ে ধরে জাস্ট গিলে ফেলতাম, যেন কেউ না দেখতে পায়। মনে হতো গলা দিয়ে আগুন নামছে। কতটা ক্ষুধার্ত থাকলে মানুষ এমনটা করে?

অভি বলেন, ‘খাওয়ার কষ্ট দেওয়া হতো। ২০ জনের জন্য ৭-৮ ছোট কৌটায় ভরে চাল নিয়ে রান্না করা হতো। এক বেলা খাবার দিত না। যে সামান্য খাবার দেওয়া হতো তাতে কারো পেট ভরত না। ক্ষুধার্ত অবস্থায় থাকত সবাই । এতটাই ক্ষুধার্ত রাখা হতো যে কল্পনা করা সম্ভব না। একেকজন রান্নাঘরে কলার খোসা, লেবুর খোসা চিবিয়ে খেত। ময়লার ঝুড়িতে ফেলা মুরগির হাড়, ভাতের মাড়। ভাতের মাড় যেখানে ফেলে দেওয়া হতো সেখান থেকে তুলে খেত।’

এই পুনর্বাসন কেন্দ্রে চিকিৎসার নামে শারীরিক নির্যাতন, মানসিক নির্যাতন ও যৌন হয়রানি হতো বলে অভিযোগ করা হয়। এখানে চিকিৎসার নামে ফ্যানের সঙ্গে ঝুলিয়ে শারীরিক নির্যাতন করা হতো বলে অভি জানান। এ ছাড়া ১৮ থেকে ২০ বছর বয়সী তরুণদের অ্যাবিউজ করতেন মালিক বাঁধন। প্রেস ব্রিফিংয়ে আরো জানানো হয়, গ্রেপ্তার ফিরোজা নাজনীন ওরফে বাঁধন তার প্রথম স্বামীর সঙ্গে ডিভোর্স হওয়ার পর শিপনের সঙ্গে দ্বিতীয় বিবাহ বসেন। শিপন তার সঙ্গে মাদক নিরাময় কেন্দ্রে বসবাস করতেন। কিন্তু তাদের বিবাহের কোনো বৈধ নথিপত্র দেখাতে পারেননি বাঁধন।

মেয়েদের বয়স বারার সাথে সাথে যে চাহিদা বেশি হয়!

মেয়েদের বয়স বারার সাথে সাথে যে চাহিদা বেশি হয়!
স্ত্রীর স্তন চোষণ করা যাবে কি? স্বামীর জন্য হালাল না হারাম জানুন

মেয়েদের বয়স বারার সাথে সাথে যে চাহিদা বেশি হয়!

বীর্যপাত বন্ধ রেখে বেশী সময় যৌন মিলন করার সেরা পদ্ধতি

Facebook Comments Box

Related Articles

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisement -

Latest Articles