28.7 C
New York
Friday, August 12, 2022

যেভাবে জীবনের প্রথম ৫০০ ডলার উপার্জন করেছিলেন বিল গেটস

স্কুল থাকাকালীন গণিত শিক্ষকের ফেব রাইট বিল গেটসকে এমন একটা জিনিসের সাথে পরিচয় করিয়েছিলেন সেই সময় বহু মানুষের কাছে যা অজানা, সেটা হলো কম্পিউটার সায়েন্স। পৃথিবীর যে সকল স্কুলগুলোতে সর্বপ্রথম কম্পিউটার বসানো হয় লেক সাইসগুই ছিল তার মধ্যে একটা।

সেই সময় কম্পিউটারগুলো ছিল সারা ঘর জুরে থাকা বিরাট বিরাট কিছু মেশিন। ৬০ এর দশরে শেষেও শুধু মাত্র গবেষকরাই কম্পিউটার ব্যবহার করতেন পরিসংখ্যান তৈরি করা ও জটিল হিসাব নিকাশ করার কজে। সেই সময়ের কম্পিউটারগুলো মাঝে এখন শুধু মাত্র কি-বোর্ডটাই পরে আছে । বিল গেটস সেই সময় প্রায়ই কম্পিউটার রুমে আসতো।

এই যন্ত্রটা কিভাবে কাজ করে সেটা খুজে বের করাটাই ছিল সেই ছোট্ট বালকের উদ্দেশ্য। বিল গেটসের এই অগ্রগতি তার শিক্ষককে অভিভূত করেছিল। মাত্র ১২ বছর বয়সের বিল গেটস ঈশ্বর হয়ে উঠেছিলেন। তিনি মনে করতেন যে, কম্পিউটার মানুষের জীবনকে বদলে করে দিতে পারে। তিনি বুঝতে পেরেছিলেন যন্ত্র নয় সফটরই পারে মানুষের জীবনের বিপলবী পরিবর্তন ঘটাতে। ১৯৬৮ সালে বিল পরিচিত হন তার দুই ক্লাশ উপরের এক ছাত্রের সাথে এবং অল্প দিনের মধ্যেই তারা বন্ধু হয়ে যান।

জীবনের প্রথম কম্পিউটার প্রোগ্রাম তারা এক সাথে বানিয়েছিলেন। এটা ছিল এমন এক প্রোগ্রাম যা স্বংকৃয়ভাবে ক্লাশের শিডউল তৈরি করতে পারতো। এই কারণে স্কুলের প্রিন্সিপাল তাদেরকে পরুস্কৃত করলেন। বিল গেটস তার জীবনের প্রথম যে চেকটি পান সেটা ছিল ৫০০ ডলারের একটি চেক এবং কম্পিউটার তৈরি করা যে একটা ভালো ব্যবসা হতে পারে সেই দিনই তিনি তা উপলদ্ধি করতে পেরেছিলেন।

যৌন সুখের সময় বৃদ্ধি করতে গিয়ে যুবকের কাণ্ড!

যৌন সুখের সময় বৃদ্ধি করতে গিয়ে যুবকের কাণ্ড!

যৌন সুখের সময় বৃদ্ধি করতে ভারতের লক্ষ্ণৌ প্রদেশের এক যুবক বেছে নিয়েছিলেন ‘এক্সটেন্ডেড প্লেজার’-এর কনডম। নতুন ব্র্যান্ডের এই কনডম ব্যবহার করতে তার বারটা বেজেছে। পচন ধরেছে তার গোপনাঙ্গে। শেষমেশ চিকিৎসকের শরনাপন্ন হয়েছেন তিনি।

আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম ‘দ্য সান’ তাদের এক প্রতিবেদনে জানায়, কনডমটি পরতেই তার যৌনাঙ্গ নিজে থেকেই ফুলে উঠতে শুরু করে। তাতে অবাক হয়ে যান ৩০ বছর বয়সী ওই যুবক। সেই ফোলা ভাব না কমায় এবং খুব জ্বালা করায় তিনি হাসপাতালে ছোটেন। সেখানে চিকিৎসকেরা পরীক্ষা করে বুঝতে পারেন, যুবকটির ওই কনডম পরে অ্যালার্জি হয়েছে। সেই কারণেই গোপনাঙ্গটি ফুলে গিয়েছে।

চিকিৎসকেরা আরও জানান, এই যুবকের জানা ছিল না তার কোনো কিছুতে অ্যালার্জি রয়েছে কি না।

পরে চিকিৎসকেরা বিভিন্ন টেস্ট করে নিশ্চিত হন এটা কোনো যৌন রোগ নয়। কনডমের উপাদান বেনজোকেইন থেকেই তার অ্যালার্জি হয়েছে। সেই অ্যালার্জি থেকেই গ্যাংরিন হয়ে যায় যুবকের গোপনাঙ্গে। পচতে শুরু করে গোপনাঙ্গের মুখটি।

চিকিৎসকদের মতে, বেনজোকেইন এক ধরনের স্থানীয়ভাবে অবশ করে দেয়ার ড্রাগ। যৌন সুখ দীর্ঘায়িত করার জন্য কনডমে এই ধরনের ড্রাগ ব্যবহার করা হয়। শীঘ্রপতন আটকাতেও যৌন সংসর্গের সময় বাড়াতে এই ধরনের কনডম ব্যবহার করার পরামর্শ দেয় সংস্থাগুলো।

জানা যায়, ১৯৯৬ সালে প্রথম এ ধরনের ঘটনা ধরা পড়েছিল। তারপর থেকে চারটি এই ধরনের ঘটনা সামনে আসে। চিকিৎসকদের মতে, ডায়াবেটিস বা গোপনাঙ্গে আঘাত লেগে থাকলে কিংবা সেক্স টয় অতি ব্যবহার করলেও এই ধরনের রোগ হতে পারে।

পোশাক খুলে তনুশ্রীকে নাচের নির্দেশ দিয়েছিলেন পরিচালক

ভারতীয় একটি গণমাধ্যম বলছে, চিকিৎসকেরা অ্যান্টিবায়োটিক দিয়ে চিকিৎসা শুরু করলেও পচে যাওয়া কোষগুলিকে বাদ দিতে পরে যুবকটির গোপনাঙ্গে অস্ত্রোপচার করতে হয়। তিন সপ্তাহ ধরে চলে এই চিকিৎসা। ছয় মাস বাদে যুবকটি সুস্থ হয়ে ওঠেন। চিকিৎসকদের মতে, যদিও এ ধরনের রোগী তারা সংখ্যায় কম পান, তবে অনেকেই সামাজিক লজ্জার ভয়ে এই সমস্যা নিয়ে চিকিৎসকদের কাছে আসতে চান না।

তবে এ ঘটনার পরও চিকিৎসকেরা কনডম ব্যবহার বন্ধ করার পরামর্শ দিতে নারাজ। চিকিৎসকদের বক্তব্য, অনেকেই জানেন না কিসে তাদের অ্যালার্জি রয়েছে। তবে গোপনাঙ্গে অস্বাভাবিক কিছু দেখলেই চিকিৎসকের কাছে যাওয়া উচিত।

যৌন সুখের সময় বৃদ্ধি করতে গিয়ে যুবকের কাণ্ড!

Facebook Comments Box

Related Articles

- Advertisement -

Latest Articles